scholarsaga

children's bedroom

কীভাবে আপনার সন্তানের থাকার ঘরকে সৃজনশীল উপায়ে সাজাবেন !

children's bedroom

ছোটবেলায়, আমরা অনেকেই সেই বাড়িতে বড় হয়েছি যেখানে আমাদের বাবা-মা দেওয়ালে লিখতে নিষেধ করতেন। দেয়ালে আঁকিবুঁকি করা একটি শিশুর সৃজনশীলতা এবং আত্ম-প্রকাশের স্বাভাবিক মাধ্যম। কখনও কখনও, আপনার বাচ্চাদের কিছু সৃজনশীলতা প্রকাশক কর্মকান্ডে  লিপ্ত হতে দেওয়া খুব একটা খারাপ ধারণা নয়।

মহামারী মানুষকে ঘরে থাকতে বাধ্য করেছে। সুতরাং, ঘরে বসে বাচ্চাদের সাথে কিছু সৃজনশীল ক্রিয়াকলাপে নিযুক্ত হওয়ার চেয়ে ভাল উপায় আর কী হতে পারে? আমরা জানি যে, স্কুলগুলিতে এখন প্রতিদিন ক্লাস হয়না, বাচ্চারা ঘরে আরও বেশি সময় কাটাতে পারছে। আমরা চাইলেই বাচ্চাদের কক্ষে এবং দেয়ালে কিছুটা পরিবর্তন করতে পারি এবং একটি সঠিক অধ্যয়নের স্থানে রুপান্তর করতে পারি। এটা বিভিন্ন ভাবে করা যেতে পারে।  

১। রং এবং গঠনবিন্যাসঃ

ব্যাক্তিত্ব অনুযায়ী আপনার সন্তানের থাকার ঘরটির দেয়ালে বিভিন্ন প্রকার রং, বিভিন্ন টেক্সচার, বিভিন্ন বৈজ্ঞানিক প্যাটার্ন, ফুল, গাছপালা ও প্রকৃতি ইত্যাদি ব্যবহার করতে পারেন। আপনার সুবিধা অনুযায়ী সাধ্যের মধ্যে মানানসই বিভিন্ন রং ও প্যাটার্নের মিশ্রণ ব্যবহার করে কাজটি করতে পারেন। বিভিন্ন টেক্সচার এবং রঙের মিশ্রণ করা এবং সেগুলর ব্যবহার আসলেই আপনার বাচ্চার ঘরটিকে আরও সৃজনশীল এবং আকর্ষণীয় করে তুলতে পারে। 

২। ওয়ালপেপার, পোস্টার, স্টিকারঃ

যদিও বেশিরভাগ মা-বাবা তাদের বাচ্চাদের দেয়ালে রং করতে পছন্দ করে, আবার কেউ কেউ বিভিন্ন ওয়ালপেপার বা অন্যান্য ওয়াল পোস্টার এবং স্টিকার ব্যবহার করতে পছন্দ করে। শিশুর ব্যক্তিত্বের সাথে বিভিন্ন মজাদার প্রাণীর ছবি, শিক্ষণীয় কার্টুন থিম এবং অনন্য পোস্টার বা স্টিকার ইত্যাদি ব্যবহার করা যেতে পারে। আমরা যদি একটু আলাদা ভাবে করতে পছন্দ করি তাহলে, ভিন্ন ভিন্ন দেয়ালে ভিন্ন ভিন্ন বিষয় উপস্থাপন করতে পারি। শিশুরা সাধারণত গাড় রঙের দেয়ালে উজ্জ্বল বর্ণের নিদর্শন পছন্দ করে। আমরা রেডিয়াম বা গ্লো স্টিকারের ব্যবহার করতে পারি। এগুলো বাচ্চাদের রাতে দ্রুত লাইট বন্ধ করতে উৎসাহিত করবে। এতে করে স্বাস্থ্যকর ঘুমের অভ্যাস গড়ে উঠবে এবং উন্নত চিন্তা ভাবনা করার দক্ষতা বৃদ্ধি পাবে।

৩। রুম সজ্জা, আলো, গৃহসজ্জার সামগ্রীঃ

যদি আমাদের বাজেট আমাদেরকে পূর্ণাঙ্গ পরিবর্তনের সুযোগ না দেয়, সেক্ষেত্রে আমরা নিজের গার্হস্থ বিভিন্ন অব্যবহৃত উপাদান ব্যবহার করে মজার কিছু তৈরি করতে পারি। খালি কাঁচের বোতল, বালি ও নুড়ি পাথর দিয়ে খুভ সহজেই শিল্প কর্ম তৈরি করা যায়। ভাঙা কাঁচের টুকরা দিয়ে খুব সুন্দর মোমবাতি ধারক তৈরি করা যেতে পারে। এগুলো তৈরি করার সময় আমারা আমাদের বাচ্চাদের কাজে লাগাতে পারি। বাচ্চাদের তৈরিকৃত শিল্পকর্মগুল তাঁদের থাকার ঘরে সাজিয়ে রাখলে, বাচ্চারা এগুলো দেখে শিশুরা নিজেদেরকে আরও আত্মবিশ্বাসী মনে করবে। বাচ্চাদের বন্ধুদের ছবি, পারিবারিক অবকাশযাপনের ছবি ইত্যাদি একত্রিত করে সাজিয়ে রাখা যেতে পারে। এভাবে আমাদের বাচ্চাদের জন্য একটি ব্যক্তিগত স্থান তৈরি করা যেতে পারে যেখানে বাচ্চারা নিরাপদ বোধ করবে। বাচ্চাদের থাকার ঘরে বিভিন্ন ঘরোয়া উদ্ভিদ রাখা যেতে পারে। যা, একটি নিস্তেজ স্থানকে জীবন্ত করে তুলবে এবং উদ্ভিদের যত্ন নেওয়ার বিষয়ে বাচ্চারা আরও যন্তবান হবে।

৪। চকবোর্ড দেয়ালঃ

ব্ল্যাক ম্যাট বা এগশেল পেইন্ট দিয়ে দেয়ালে পেইন্ট করে খুভ সহজেই বাচ্চাদের শ্রেণীকক্ষের আদলে সহজে ধোয়া যায় এমন  চকবোর্ড তৈরি করার যায়। এখানে বাচ্চারা তাঁদের খুশিমত আঁকিবুঁকি করতে পারবে। এধরনের একটি চকবোর্ড বাচ্চাদের কল্পনার জগতকে প্রশারিত করবে এবং তাদের আরও জ্ঞানী এবং কৌতূহলী হতে সাহায্য করবে।    

আপনার সন্তানের সুস্থ শারীরিক বিকাশের পাশাপাশি সুস্থ মানুষিক বিকাশও একই ভাবে গুরুত্বপূর্ণ। সুস্থ গঠনমূলক মানুষিক বিকাশের জন্য শিশুর থাকার ঘরকে সর্বাধিক গুরুত্বের সাথে সাজানো প্রয়োজন।

Spread the love
error: Content is protected !!
Scroll to Top